ধৈর্যের সাথে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে

297
♦ধৈর্যের সাথে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে।।
মহিউদ্দিন ওসমানী : ব্যাপক মৃত্যুর হুমকি নিয়ে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে প্রাণঘাতি সংক্রমণ ভাইরাস নভেল করোনা। চীন, ইতালী, ইরান, স্পেন, আমেরিকা,সৌদি আরবসহ পৃথিবীর বহু দেশ ও অঞ্চলে এর প্রকোপে মৃত আর আক্রান্তের মাত্রা দিন দিন ভয়াবহ হয়ে উঠেছে। এখন বাংলাদেশসহ দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশ গুলোতেও এর প্রকোপ বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশ্বে মহামারি রুপ পাওয়া লভেল করোনাভাইরাসে আজ পর্যন্ত বাংলাদেশে সর্বমোট আক্রান্ত- ১১৭জন। মৃত্যু হয়েছে : ১৩জন।
আগে সিনেমায় আমরা দেখতাম,জোম্বি,মনষ্টার আসছে পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। বাস্তবে এমন পৃথিবী দেখতে হবে কল্পনাও করিনি। বাংলাদেশেসহ পুরো পৃথিবী লকডাউন, ভাবা যায়! এখন এইসব ভাবতে হচ্ছে, সাথে পাচ্ছি ভয়ও, সামনের দিন কিভাবে পার করতে হবে এই চিন্তায়। বেঁচে থাকার জন্য মানুষের কোটি টাকা কোনো লাভ নাই। আমরাসহ সারা পৃথিবীর লোক সবাই মেশিনের মত দৌড়াছিলাম, পৃথিবীটা যেন একটা দৌড়ের মধ্যে ছিল। এখন পৃথিবীর সব প্রতিষ্টান, সব সড়ক বন্ধ এবং ফাঁকা, নীরব, সবখানে এখন খাঁ খাঁ করছে। করোনাভাইরাস পৃথিবীকে আমার প্রিয় বাংলাদেশকে মৃত্যুপুরী বানিয়ে দিয়েছে। প্রতিদিন খবর আসছে সারা পৃথিবীতে শত শত মানুষের মৃত্যু। সামনে কি হবে, বুঝতে পারছি না, অনিশ্চয়তা আরো বাড়ছে।
এখন সবার আগে দরকার আমাদের আচরণগত পরিবর্তন।আমাদের দেশের সবাইকে বলবো ঘরে থাকুন সামাজিক দুরত্ব বা অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধিগুলো বাধ্যতামূলকভাবে মেনে চলুন। এখন ধৈর্যের সময়। একে অন্যকে সাহস দেওয়া, সচেতন করার সময়। আমাদের আশপাশের সুবিধাবঞ্চিত, দিনমজুর, অসহায় মানুষের পাশে থাকার সময়। ভালো সময়কে যদি আমরা উপভোগ করতে পারি, দুঃসময়ের মুখোমুখি হওয়ার মানসিকতাও আমাদের থাকতে হবে।
আজ যখন বিশ্বের প্রবল পরাক্রমশালী রাষ্ট্রগুলোর সব শক্তি, ক্ষমতা আর দম্ভকে ধুলায় মিশিয়ে দিয়ে অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে মরণঘাতী সংক্রমণ করোনাভাইরাস,যখন নজিরবিহীন অসহায়ত্বে অচেনাজীবন অচেনা পৃথিবী, যখন লাখ লাখ লোক আক্রান্ত, হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু, যখন নাই কোনো ঔষুধ, নেই বাঁচার উপায়, নেই দিক-নির্দেশনা। তখন নিজ নিজেকে সচেতন করি। সবাই সাবধানে থাকি এবং ঘরের মধ্যে থাকি আপাতত পরিচিত বা অপরিচিত কারও সংস্পর্শে না আসি, তাতে কারো সংস্পর্শে করোনাভাইরাস ছড়াতে পারবে না। আমরা নিয়মিত সাবান বা হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে বারবার হাত ধুই, তাহলে করোনাভাইরাসের জীবাণু যদি থাকে তা ধ্বংস হয়ে যাবে। আসুন আমরা করোনার বিরোদ্বে যুদ্ধের নিয়মগুলো মেনে চলি। আমরা ভাল থাকি নিকটজনদের নিয়ে। আমরা ভাল থাকি আমাদের কাছের মানুষের সুস্থ্যতায়, আমরা ভাল থাকি চারপাশের সবার আন্তরিকতায়। একা একা ভাল থাকা যায় না। ভালো থাকুক মা-বাব, ভাই-বোন, ভালো থাকুক আত্মীয়, বন্ধু আর তাদের প্রিয়জন। ভালো থাকুক আমার দেশে সব মানুষ। পৃথিবী সেরে উঠুক, সচেতনতা বাড়ুক, এই অস্থির সময় কেটে যাক।অদৃশ্য দৈত্য ঘায়েল হোক।
 আমার দৃঢ়বিশ্বাস, আমরা ঠিকই ঘুরে দাঁড়াব। ইতিহাস বলে, লড়াকু বাংলাদেশ জানে বিপদে ভয়কে জয় করে কীভাবে সামনে এগিয়ে যেতে হয়।
মহিউদ্দিন ওসমানী
জেলা শিক্ষক অ্যাম্বাসেডর, চট্টগ্রাম
বাতায়নে সেরা কন্টেন্ট নির্মাতা-২০১৭
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Facebook Comments