স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা জাতীয়করণে বাজেট বরাদ্দের দাবি

825

স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা জাতীয়করণে বাজেট বরাদ্দের দাবি

বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের রেজিষ্ট্রেশন প্রাপ্ত শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে প্রেরিত জেলা প্রশাসক কতৃক বাছাইকৃত সকল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা জাতীয়করণের জন্য আগামী ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে বাজেট বরাদ্দ করার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন।

মোঃ নিজাম উদ্দিন: অদ্য ১৩-০৫-২০২০ইং রোজ বুধবার সকাল ১১.০০ ঘটিকা বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড হতে রেজিষ্ট্রেসন প্রাপ্ত সকল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা জাতীয়করণের দাবীতে বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির উদ্যেগে ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করে সমিতির সহ-সভাপতি এবিএম আব্দুল কুদ্দুছ। উপস্থিত ছিলেন মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমান, যুগ্ন মহাসচিব আবু মুসা ভুইয়া, উপদেষ্টা মুফতি মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী, আনোয়ার হোসেন জুয়েল, মোঃ মহিদুল শেখ, মোঃ রনজু মিয়া।

——————————————————————-

📌📌শিক্ষা সম্পর্কিত খবরাখবর জানতে এখানে ক্লিক করে শিক্ষা গ্রুপে ঢুকে JOIN GROUP এ  ক্লিক করুন।গ্রুপে আপনিও শেয়ার করুন…

——————————————————————-

👉👉দৈনন্দিন শিক্ষা সম্পর্কিত খবরাখবর পেতে এখানে ক্লিক করে দৈনিক শিক্ষা সংবাদ পেইজে ঢুকে ” LIKE PAGE ” 👍 এ লাইক দিন

——————————————————————-

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা ১৯৭৮ অর্ডিন্যান্স ১৭(২) ধারা মোতাবেক মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের শর্ত পূরণ সাপেক্ষে রেজিঃ প্রাপ্ত হয়। রেজিঃ প্রাপ্ত হওয়ার পর থেকে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের বিধি মোতাবেক কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। ১৯৯৪ইং সনে একই পরিপত্রে রেজিষ্ট্রার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষকদের বেতন ৫০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। পরবর্তিতে বিগত সরকারের সময় ধাপে ধাপে বেতন বৃদ্ধি হতে হতে ২০১৩ সালের ৯ জানুয়ারী বর্তমান মহাজোট সরকার ২৬,১৯৩ টি বেসরকারি প্রাইমারি স্কুল জাতীয়করণ করে। প্রাইমারি স্কুলের ন্যায় সকাল ৯ টা হতে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত সরকারি একই সিলেবাসে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের পাঠদান করা হয়। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ন্যায় ইবতেদায়ী ৫ম শ্রেনীর শিক্ষার্থীরা সমাপনী পরিক্ষায় অংশগ্রহণ করে এবং ইবতেদায়ী শিক্ষকরা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ন্যায় সরকারের সকল কাজে অংশগ্রহণ করে। অথচ মাস শেষে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ ২২-৩০ হাজার টাকা বেতন পায়। কিন্তু ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকগণ তেমন কোন বেতন-ভাতা পায় না। তবুও তারা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ন্যায় শিক্ষকতা চালিয়ে যাচ্ছে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সমিতির মহাসচিব বলেন, ২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষক সমিতির অবস্থান ধর্মঘাট ও অনশণ চলাকালীন সময় সরকারের নির্দেশে সচিব মহোদ্বয় আন্দোলনস্থলে এসে শিক্ষকদের দাবী মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেন। শিক্ষা মন্ত্রনালয় কতৃক স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী শিক্ষকদের বেতন ভাতা সার-সংক্ষেপ ২০১৯ -এ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্বাক্ষর করেন। কিন্তু আজও তা বাস্তবায়িত হয়নি।

এ সময় মহাসচিব আরও বলেন, শিক্ষা মন্ত্রনালয় প্রেরিত জেলা প্রশাসক কতৃক বাছাইকৃত সকল সতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা ২০২০-২০২১ অর্থ বাজেটে প্রাইমারী স্কুলের ন্যায় জাতীয়করণের অন্তর্ভুক্তকরণ না হলে ( কভিড-১৯ এর সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনে) নিম্মোক্ত কর্মসূচি পালন করা হবে।

কর্মসূচি সমুহঃ

১. আগামী ২১ জুন ২০২০ দেশের সকল জেলা প্রশাসক কার্যলয়ের সামনে মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্বারকলিপি প্রদান করা হবে।
২. ১লা জুলাই ২০২০ থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন অবস্থান ধর্মঘট ও লাগাতার আন্দোলন কর্মসূচি পালন করা হবে।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Facebook Comments